Connect with us

করোনা’র কারণে ভারতজুড়ে ভয়াবহ অবস্থা

ভারতের রাজধানী, দিল্লী, করোনা

Health

করোনা’র কারণে ভারতজুড়ে ভয়াবহ অবস্থা

ভয়াবহ এক পরিস্থিতির মুখে পড়েছে ভারত। কিছুদিন আগেও যেখানে চিকিৎসার জন্যে রোগীর আপনজনদের হাসপাতালের সামনে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে, সেখানে এখন ভারতজুড়ে হাহাকার চলছে অক্সিজেনের অভাবে। প্রতিঘন্টাতেই বহু মানুষ মারা যাচ্ছেন অক্সিজেনের অভাবে। পত্রপত্রিকায় বলা হচ্ছে, রাজনীতিবিদদের কাছের লোকজন নাকি সিণ্ডিকেট গড়ে অক্সিজেনের সরবরাহ বিঘ্নিত করছেন। যার ফলে সৃষ্টি হয়েছে চরম সঙ্কট। ভারতের রাজধানী দিল্লীতে করোনা রোগীর মৃত্যুর হার এতোটাই বেড়ে গেছে যে এখন শ্মশান গুলোতেও মৃতদেহের লাইন। শতশত মৃতদেহ। করোনায় বিধ্বস্ত হয়ে গেছে দিল্লী।

চিকিৎসা পেতে প্রথমে হাসপাতালের বাইরে লাইন দিতে হয়েছিল। মৃত্যুর সঙ্গে যখন পাঞ্জা লড়ছেন, তখন হাসপাতালের বাইরে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন তাঁদের পরিজনরা। মৃত্যুর পরেও সেই লাইন থেকে নিস্তার পেলেন না দিল্লীতে করোনার কবলে প্রাণ হারানোরা। চিতায় ওঠার জন্যও মাচায় শুয়ে থাকা অবস্থাতেই শ্মশানে লাইন দিতে হল তাঁদের। অতিমারিতে বিধ্বস্ত রাজধানীতে এবার এমনই দৃশ্যই সামনে এলো।

কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার রিপোর্টে দিল্লীর করোনা পরিস্থিতি আর শ্মশান গুলোর যে বর্ণনা দেয়া হয়েছে, সেটা রীতিমত ভয়ঙ্কর। আনন্দবাজার বলছেঃ  ৪০ ডিগ্রির উপরে হাঁসফাঁস করা গরমে মঙ্গলবার দিল্লিতে কী দৃশ্য ধরা পড়ল? সুভাষনগর শ্মশানে টিনের চালের নীচে সারি সারি চিতা জ্বলছে। মিহি ছাই উড়ে এসে পড়ছে পাশের চাতালেও। আর খাঁ খাঁ রোদে তেতে ওঠা সেই চাতাল ধরেই এগিয়েছে মৃতদেহের সর্পিল রেখা। এক ঝলক তাকালেই মাচার সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা ১৫২০টি দেহ চোখে পড়তে বাধ্য। পাশের উঁচু বাঁধানো জায়গায় ঘি এবং প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে বসে রয়েছেন পরিজনরা। এক দুঘণ্টা নয়, ১৬ থেকে ২০ ঘণ্টা বসে রয়েছেন কেউ কেউ। যে প্লাস্টিকের থলিতে মৃতদেহ মোড়া রয়েছে, তার উপর নাম, নম্বর লেখা থাকায় হাতছাড়া হওয়ার ভয় নেই। তাই একটানা বসে না থেকে বাইরে থেকে মাঝেমধ্যে পোড়া দেহের গন্ধ এবং ধোঁয়া থেকে বেরিয়ে আসছেন অনেকে।

কিন্তু বাইরে বেরিয়েও যে প্রাণভরে শ্বাস নেবেন তার উপায় নেই। সেখানেও মৃতদেহ নিয়ে সারি সারি অ্যাম্বুল্যান্স এবং গাড়ি দাঁড়িয়ে রয়েছে। তখনও ধাক্কা সামলে উঠতে না পারা কয়েক জন ফোঁপাচ্ছেন। কোনখানে দাঁড়াবেন বুঝতে পারছেন না। তাতে বাকিরাও রীতিমতো অপ্রস্তুত। এমন সময় বেরিয়ে এলেন শ্মশানের এক কর্মী। কড়া স্বরে বললেন, ‘‘অপনা অপনা ডেড বডি উঠাও অউর উধর লাইন মেঁ জা কে খড়ে হো জাও।’’ তাতে প্লাস্টিকে মোড়া বাবার দেহের উপর চন্দনকাঠ সাজাতে গিয়ে থতমত খেয়ে গেলেন এক মহিলা। কোনটা নাভি আর কোনটা বুক, বুঝে উঠতে পারছিলেন না। তাঁকে ধমক লাগালেন অন্য এক শ্মশানকর্মী। তাতে ফুঁপিয়ে উঠলেন ওই মহিলা। কান্না চাপতে চাপতে বললেন, ‘‘বাবার মুখটা পর্যন্ত দেখতে পাইনি।

সোমবার বিকেলে সুভাষনগর শ্মশানে কোভিডে মারা যাওয়া বাবার দেহ নিয়ে গিয়েছিলেন বছর চল্লিশের মনমীত সিংহ। সংবাদমাধ্যমে তিনি জানিয়েছেন, অ্যাম্বুল্যান্স, গাড়ির ভিড় কাটিয়ে শ্মশানে ঢুকতে যাবেন, তার আগেই রাস্তা আটকান এক কর্মী। জানিয়ে দেন, আর দেহ নেওয়া যাবে না। কারণ এত দেহ লাইনে রয়েছে যে, সোমবার সব টি দেহ দাহ করার জায়গা এবং কাঠ নেই। আর সিএনজি চুল্লিতে একসঙ্গে দুটোর বেশি দেহ করা যায় না। তাতেও এক একটি দেহের পিছনে কমপক্ষে ৯০ মিনিট সময় লাগবে। ইতিমধ্যেই লাইনে ২৪টি দেহ রয়েছে। তাই অন্য কোথাও যেতে হবে তাঁকে।

বাধ্য হয়ে কিলোমিটার দূরে পশ্চিম বিহার এলাকার শ্মশানের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। পুরসভাকে ধরে সেখানেই শেষমেশ বাবার দেহ দাহ করেন। সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মনমীত বলেন, ‘‘সরকার হাসপাতালে অক্সিজেন দিতে পারবে না। অন্তত শ্মশানে জায়গা তো দিক, যাতে পৃথিবী থেকে বিদায়টা অন্তত ঠিকঠাক হয়!

সোমবার সন্ধ্যায় সুভাষনগর শ্মশানে বাবার দেহ নিয়ে আসেন ব্যবসায়ী আমন অরোরাও। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তাঁর বাবা এমএল অরোরার মৃত্যু হয়। কিন্তু একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করতে গেলে আগে কোভিড রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়। কিন্তু নমুনা পরীক্ষা করার আগেই বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হয় তাঁর। তার পর সন্ধ্যা পেরনোর আগেই শ্মশানে এসে পৌঁছন তিনি। কিন্তু মঙ্গলবার সকালের আগে দাহ করা সম্ভব নয় বলে তাঁকে জানিয়ে দেন শ্মশানের কর্মীরা। কিন্তু তত ক্ষণে পচন ধরতে পারে ভেবে একটি ফ্রিজ ভাড়া করে শ্মশানের বাইরেই বাবার দেহ সংরক্ষণ করে রাখেন তিনি। মঙ্গলবার বিকেলে শেষমেশ বাবার সৎকার করতে পারেন তিনি।

তবে শুধু সুভাষনগর নয়, দিল্লির প্রত্যেক শ্মশানেরই একই অবস্থা বলে ভূরি ভূরি অভিযোগ। তাতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দেওয়া নিয়ে কেন্দ্রের পাশাপাশি অরবিন্দ কেজরীবাল সরকারের প্রস্তুতি নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। কেজরীবাল যদিও স্বাস্থ্যক্ষেত্রে বিপর্যয়ের কথা মেনে নিয়েছেন। গত ১০ দিনে যত কোভিড রোগীর মৃত্যু হয়েছে, তাঁদের অধিকাংশই অক্সিজেনের অভাবে মারা গিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। কিন্তু এই অক্সিজেনে ঘাটতি নিয়েও কেন্দ্র এবং দিল্লি সরকারের মধ্যে দোষারোপ পাল্টা দোষারোপের পালা চলছে।

বাংলাদেশে ভ্যাক্সিন দিতে পারবেনা ভারতীয় কোম্পানি

ভারতে কোভিড পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করায় সেদেশের সেরাম ইন্সটিটিউট বাংলাদেশে কোভিড ভ্যাক্সিনের পরবর্তী চালান দিতে অক্ষমতা জানিয়েছে। অথচ বাংলাদেশ অনেক আগেই নগদ টাকা দিয়ে ভ্যাক্সিন কিনে রেখেছে ভারতীয় ওই কোম্পানির কাছ থেকে। তারপরও ওরা ভ্যাক্সিন দেবেনা। আর একারণেই বাংলাদেশ এরই মাঝে চীন এবং রাশিয়া থেকে ভ্যাক্সিন আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। জানা গেছে, চীন এবং রাশিয়ার ভ্যাক্সিন বাংলাদেশেই উৎপাদনের ব্যবস্থাও হয়ে গেছে। এটা আমাদের সবার জন্যেই ভালো খবর।

Recommended for you:
Continue Reading
Advertisement
You may also like...

Contents published under this byline are those created by the news team of WeeklyBlitz

Click to comment

Leave a Comment

More in Health

Popular Posts

Subscribe via Email

Enter your email address to subscribe and receive notifications of new posts by email.

Top Trends

Facebook

More…

Latest

To Top
%d bloggers like this: